রাষ্ট্র অসুখে, সরকারের ভেতরে অস্থিরতা

মতিউর রহমান চৌধুরী

মত-মতান্তর ২৮ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৯

জীবন আর জীবিকা। এ দু’টার মধ্যে লড়াই আদিকাল থেকেই। আখেরে জীবন জিতেছে। জীবিকা হেরে গেছে। কারণ জীবন না থাকলে জীবিকা অর্থহীন। কিন্তু আমরা বাংলাদেশে কি দেখতে পাচ্ছি? ভয়ঙ্কর ভাইরাসের থাবা যখন তুঙ্গে তখনই আমরা সব দরজা, জানালা খুলে দিচ্ছি। কারণ নাকি একটাই। মানুষ জীবনকে তুচ্ছ করে জীবিকার লড়াই চালিয়ে যেতে চায়।

এটা ঠিক মানুষ আর কতদিন পেটে গামছা বেঁধে থাকবে।
সে ঘরে বসে ছটফট করছে। বাঁচার তাগিদে সে দরজা, জানালা খুলে বের হয়ে আসতে চাচ্ছে। নিঃসন্দেহে এটা একটা নতুন মুসিবত। অর্থনীতির চাকা ঘুরছে না। চারদিকে শুধু আফসোস আর আফসোস। কি হবে, কি হবেÑ রব। মন খারাপের অসুখে পেয়ে গেছে অনেককে। মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন দীর্ঘদিন বন্দি থাকলে এমনটাই হবে। এর একমাত্র দাওয়াই কি দরজা ভেঙে বের হয়ে যাওয়া! তাই যদি হয় তাহলে রেখে ঢেকে কেন? এক ঘোষণায় বলে দিলেই হয়। বাংলাদেশ চলবে তার মতো করে। এই যুক্তি মন্দ নয়। কিন্তু আমরা যখন সকাল বিকাল সিদ্ধান্তের পরিবর্তন দেখি তখনই মনে হয় রাষ্ট্রকে অসুখে পেয়ে বসেছে। অস্থিরতাও দেখছি সরকারে। ২৪ ঘণ্টায় কতগুলো সিদ্ধান্ত দেখলাম! শিরোনাম এলো আর ছুটি বাড়বে না। বলা হলো সবকিছু স্বাভাবিক হলেও গণপরিবহন চলবে না। দু’ঘণ্টা পর আরেক ফরমান। সীমিত আকারে গণপরিবহনও চলবে। গণপরিবহন চলছে সীমিতভাবে এটা নিশ্চিত করবে কে? এই শক্তি কি আমাদের আছে? হুড়মুড় করে সব পরিবহন রাস্তায় নেমে পড়বে। তখন নিয়ন্ত্রণ করবে কে? বাস্তবে এর বিপরীতটাই ঘটবে। অতীত অভিজ্ঞতা তাই বলে। ক’দিন আগেই তো আমরা দেখলাম নতুন অ্যাপের জন্ম হচ্ছে। আপনি কোথায় যাবেন, কেন যাবেন তা জানাতে হবে অ্যাপের মাধ্যমে। সে সিদ্ধান্তও নিমিষেই হারিয়ে গেল। ২৪ ঘণ্টায় আরেকটা সিদ্ধান্ত হলো। এখন থেকে সব হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসা হবে। আচ্ছা বলুনতো কয়টা হাসপাতালে এই সুবিধা রয়েছে? যেখানে শয্যাই নেই সেখানে কোভিড রোগীর চিকিৎসা হবে কীভাবে? করোনা রোগীদের বেশিরভাগের জন্য ভেন্টিলেশন অপরিহার্য। হাসপাতালগুলোর চেহারা আমাদের সামনে ভাসছে। পাঁচ তারকা হাসপাতাল ছেড়ে কেন সিএমএইচ-এ যাওয়ার প্রাণান্তকর চেষ্টা? স্বীকার করতেই হবে স্বাস্থ্যসেবা একদম নুইয়ে পড়েছে। পড়ারই কথা। কারণ স্বাস্থ্যসেবা বছরের পর বছর ধরে উপেক্ষিত। দুর্নীতি আর লুটপাটে একদম কাহিল। এক সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পরিবার যেভাবে দুর্নীতি করেছে তাতো দেশি বিদেশি মিডিয়ায় এসেছে। কোনো তদন্ত হয়নি। কারণ অজ্ঞাত। কেউ জানার চেষ্টাও করে না। মিডিয়াও ক্লান্ত হয়ে পড়েছে। অন্য দেশ খুলে দিয়েছে তাই আমি ঘরে বসে থাকব কেন? এমন যুক্তিও দেখানো হচ্ছে। অন্য দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাতো আমাদের মতো নয়। সবাই জানে করোনা ভাইরাস যখন পিকে তখন আমেরিকা কিংবা ইংল্যান্ডের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার মতো অতি উন্নত ব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছিল। আমাদের এখানে স্ববিরোধিতা ভরপুর। একদিকে আমরা সব ওপেন করে দিচ্ছি।
অন্যদিকে সব হাসপাতালকে কোভিড-১৯ হাসপাতালে পরিণত করছি। তার মানে কি? আমরা কি ধরে নিচ্ছি যা হবার হবে দেখা যাক না! অনেক রাষ্ট্রনায়ক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ উপেক্ষা করে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে গিয়ে অনেক মূল্য দিয়েছেন এবং দিচ্ছেন। উদাহরণ হিসেবে ব্রাজিলের কথা বলা যায়। দেশটির প্রেসিডেন্টের একগুয়েমি সিদ্ধান্তের কারণে দু’জন স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে বিদায় নিতে হয়েছে। সংক্রমণের দিক থেকে দেশটির স্থান এখন যুক্তরাষ্ট্রের পরেই।  প্রতিদিনই মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের একজনও বলেননি এই পিকের সময় দরজা খুলে দিতে। বরং তারা প্রতিদিনই মিডিয়ার সামনে এসে বলছেন কোথায় যেন ভুল হচ্ছে। তারা কারফিউ দেয়ার পরামর্শও দিয়ে চলেছেন। কে শুনে কার কথা! শুধু শহরে নয়। গ্রামেও পৌঁছেছে অদৃশ্য এই ভাইরাসটি। দলে দলে গ্রামে যাবার মিছিল না থামাতে পারাই কি এর মূল কারণ? যে যাই বলেন মৃত্যুভয় কার নেই! নিজের মাকে যেখানে বাড়িতে ঢুকতে দেয় না সেখানে আমরা বলছি জীবন তুচ্ছ। জীবিকার লড়াইয়ে শামিল হোন। মানছি আবেগ একটা সমুদ্রের ঢেউয়ের মতো। তাই মানুষের আবেগ কঠিন বাস্তবকেও শুষে নেয়। অনেকে আমার সঙ্গে একমত নাও হতে পারেন। এই কঠিন সময়ে বলবো করোনার সংক্রমণের গ্রাফ যেখানে ঊর্ধ্বমুখী সেখানে তাড়াহুড়ো করে সব প্রত্যাহার করে নেয়াটা হবে আত্মঘাতী। সবই যখন প্রত্যাহার হয়ে গেল তখন আর স্বাস্থ্য বুলেটিনের প্রয়োজন কি? এটাও প্রত্যাহার হয়ে যাক। মানুষ আর জানবে না। মনও খারাপ করবে না। যদিও এর বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে শুরু থেকেই বিস্তর কানাঘুষা। অনেকে এখানে প্রয়াত সাংবাদিক ফয়েজ আহমেদকে স্মরণ করেন। ফয়েজ আহমেদ লিখেছিলেন- সত্যবাবু মারা গেছেন। যাই হোক, সব সত্য যে সত্য নয় এটা আমরা অনেকদিন আগেই রপ্ত করেছি। পবিত্র সুরা আল-বাকারার একটি আয়াত এখানে উদ্ধৃত করে লেখাটা শেষ করতে চাই।
আয়াতে বলা হয়েছে, ‘তোমরা সত্যকে মিথ্যার সঙ্গে মিশিও না, জেনেশুনে সত্যকে গোপন করো না।’
শেষ কথা: কামনা করছি যেন দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন দিতে না হয়।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

গাজ্জালী

২০২০-০৬-০৭ ০৮:৪৫:০৫

মনের কথা। সঠিক সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া জরুরি।

Dr Shaleha Kader

২০২০-০৫-৩১ ০৭:১১:৪৭

অনেক ভেবে চিন্তে প্রতিটা পদক্ষেপ নেয়া উচিত | হুটহাট সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এখন নয় | মানুষের জীবন আগে এটা ভাবতে হবে | কোটি কোটি টাকা লুটপাট যারা করেছে, রাজনীতিবিদ, বড় বড় রাঘববোয়াল ব্যবসায়ী থেকে টাকা নিয়ে মধ্যবিত্ত নিম্নবিত্তদের পরিবারে দুই তিনমাসের খরচ ভোটার আইডি অনুযায়ী বিতরনে সঠিক ব্যবস্থা করা যায় |

বেদার আহমেদ

২০২০-০৫-৩০ ২৩:২৮:৫৩

সরকারের উচিত ২০ দিনের জন্য কার্ফিও জারি করে ১০০% মানুষকে ঘরে আবদ্ধ করে রাখা যেটা চীন করেছিলো।

মোস্তফা কামাল

২০২০-০৫-৩০ ১৮:৩৯:২১

সুন্দরলেখনী

jahangir alam

২০২০-০৫-৩০ ১৩:৫০:৫৪

apnar lekhar mullo ai dese hobe na thanks

Shahjalal Khan

২০২০-০৫-৩০ ১২:০৬:৪৯

Good opinion sir. Agree with you

Alim

২০২০-০৫-৩০ ০৯:১৪:১৫

Sir thanks you prescribe.. Can I get you hp number I'm from Singapore I'm looking your hp number just got this time line.+6583982745 pls contract me. Commercial diver

মোঃ জিয়াউররহমান

২০২০-০৫-৩০ ০৮:৩৭:৪১

স্যার দয়া করে সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলকে বলুন কমপক্ষে ১৫ টা দিন ১৪৪ ধারা জারি করতে। আর যেন ভুলেও গণপরিবহন এবং জনসমাগম হয় এমন স্হান উন্মুক্ত করা না হয়। তাহলে সর্বনাশের চূড়ান্ত হয়ে যাবে। প্লিজ যে কোন মূল্যে লকডাউন যেন প্রত্যাহার করা না হয়।

Ataur Rahman

২০২০-০৫-৩০ ০৭:০২:৩৪

Apnar shathe

Zahed hossen

২০২০-০৫-৩০ ০৫:১৯:২২

আমাদের সরকারের একমাত্র কাজ হচ্ছে দেশ -জনগণ জাহান্নামে যাক।তাদের ক্ষমতা ও লুটপাট ঠিক থাকলেই হলো।

PRANAB MAJUMDER

২০২০-০৫-৩০ ০০:৩৫:৪৯

মতি ভাইয়ের ছোট বাক্যে সমালোচনা ও পরামর্শমূলক লেখা আমার বরাবরই পচ্ছন্দ । সত্যনিষ্ঠ যুক্তিতে সমসাময়িককালের বিশ্লেষণধর্মী লেখাটির বক্তব্য কে শুনবে ? তবুও সাংবাদিককে দায়িত্বশীল হয়ে তার কাজটি সম্পাদন করতে হয় । সকলের জন্য শুভ কামনা ।

ছানোয়ার হোসাইন

২০২০-০৫-২৯ ২০:০২:১৬

স্যার অামার মনে হয় অনেক বড় ভূল হয়ে গেল।অন্ততঃ পনেরোটা দিন যদি লকড়াউনের মেয়াদ বাড়িয়ে সরকার কঠোর অবস্হানে থাকতো তাহলে অনেক ভালো হতো। অাল্লাহ অামাদের সবাইকে হেফাজতে রাখুন।

aponvola

২০২০-০৫-২৯ ১৯:১৫:৪৪

অসংখ্য ধন্যবাদ,সত্য কথাগুলো নির্বিঘ্নে সবার সামনে তুলে ধরার জন্য।লেখাটা দেখে যদি কারও বোধ ফেরে।

ইকবাল আহামেদ

২০২০-০৫-২৯ ১৭:৫২:৩৭

চমৎকার সুন্দর লেখা, অসংখ্য আন্তরিক ধন্যবাদ, আপনার এমন লেখনী আমরা আরও চাই। বৃষ্টি ও দক্ষীনা হাওয়ার মত অফেক্ষায় থাকি, যদি সেই বৃষ্টি ও হাওয়া সরকার গায়ে অনুভব হয়। আল্লাহ আপনাদের মত দুচার জন সাহসী সাংবাদিকদের হেফাজত করুন,

বাহাউদ্দিন বাবলু

২০২০-০৫-২৯ ১৭:২৭:৩৭

মন্তব্য করতে ভয় হয়,কখন বিপদ আসে?

মতিউর রহমান।

২০২০-০৫-২৯ ১৬:৪৮:৩৬

সত্য কথা খালি কলশ বাজে বেশ। দেশে কিআর মানুষ আছে? সরকার ছাড়া সবাই তো গরু ছাগল। আমরা মরলে কি আর বাঁচলে কি। ডিজিটাল বাংলাদেশ। গদি বাঁচাতে ডিজিটাল উপায় জানা আছে।

মোঃ শহীদুল ইসলাম।

২০২০-০৫-২৯ ১৩:৩৬:৫৮

আপনার লেখাটি মন দিয়ে পড়লাম। অত্যন্ত বাস্তব সম্মত লেখা। করোনা নিয়ে আমরা পাবলিক এবং সরকার সবাই যেন পাগলামি খেলায় মেতেছি। নীতি নির্ধারক শিক্ষিত মহল আরো বেশি বেপরোয়া। যাদেরকে সচেতন সমাজ মনে করি তারাই বেশি অবচেতনের মত আচরণ করছে। টাকা ইনকামের জন্যই যেন জীবন -তাই কি? আমরা জানি, জীবনের জন্য টাকা অথচ সরকারের সিদ্ধান্তে মনে হচ্ছে টাকার জন্যই জীবন। তাই জীবনকে এবার করোনার কাছে বলী দিতে হবে। সব কিছু খুলে দেওয়ার অর্থ--তোমরা মৃত্যুর মিছিলে নামো!

মোঃ শাহেদ

২০২০-০৫-২৯ ১২:৩৮:০৯

চমৎকার লেখার জন্য আপনাকে ধন্যবা। আমরা এমন সময় পার করছি যে সময়টা আমাদের বাঁচা মরার সময়। সময়ে একফোঁটা অসময়ে দশ ফোট। জীবনটা অর্থহীন? নাকি অর্থটা অর্থহীন? বেঁচে থাকলে আবার দেখা হবে যদি না থাকি তবে কি দখা হবে? সমুদ্রের পানিকে কালার করতে হলে পানিতে কালার ফেল্লে কি কাজ হবে? কালার করতে হলে মোহনায় রং ঢালতে হবে তবেই রং ছড়িয়েপড়বে সবখানে। যানিনা কতটুকু পথ পারি দিতে হবে আমাদের?

ebu

২০২০-০৫-৩০ ০১:০৫:২৬

আমাদের সরকার যথেষ্ট সময় পেয়েছিলো কিন্তু তারা সময়কে কাজে লাগাতে পারেনী তারা বলেছে আমরা করোনার চেয়ে শক্তিশালি দেশের জনগনের প্রতি দায়বদ্ধতা না থাকলে যা হয় আরকি

কাজী সোহেল আহম্মেদ

২০২০-০৫-২৯ ১১:৩৩:১৪

পুরোনো গল্প। সামর্থ্যহীনদের উল্লাস। তিন বন্ধু ১।অন্ধ ২। দুই পা নাই যার অর্থাৎ পঙ্গু ৩। টাকা নাই যার নিঃস্ব। প্রথম বন্ধু অন্ধ তার পালা ,সে বলে আকাশে কত তাঁরারে। দ্বিতীয় বন্ধু র পালা ,সে বলে দিব লাথি কিন্তু তার পা নাই। এবার তৃতীয় বন্ধুর পালা,দে লাথি টাকা লাগে আমি দেব কিন্তু সে নিঃস্ব। আমাদের মন্ত্রী বাহাদুর ও নাটের গুরু দের এমন অবস্থা।সামর্থহীনদের মত উল্লাসে ব্যস্ত। আমাদের বিবেক,মন,চোখ, জ্ঞান,সব কিছুই কেমন জানি মত প্রকাশ না করতে করতে দীর্ঘশ্বাসের ডিনামাইট হয়ে যাচ্ছি।একা একা কবেই নিজে নিজে শেষ হয়ে যাব।মতি ক্ষমা করবেন। কিছু মত প্রকাশ করার অক্ষমতায়,শুধু ই গুমরে গুমরে কাঁদি। পরিবার ও বোঝায়!!!!

Abutaleb Hazari -Fen

২০২০-০৫-২৯ ১০:০৩:১০

লেখককে ধন্যবাদ। আল্লাহ্ রহমত ছাড়া বাঁচতে পারবোনা।

মাসুম

২০২০-০৫-২৯ ০৭:৪৯:১৭

সরকারের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব সু্স্পষ্ট । সিদ্ধান্তগুলো কিসের আলোকে নেয়া হয় তা আমাদের বোধগম্য নয়। স্বীকার করতে দ্বিধা নেই এ যাবত কালের এটাই সবচাইতে দুর্বল সরকার । যারা অভিজ্ঞ , সত্ বলে পরিচিত তাদেরকে দূরে রাখার ফলে সরকারের পক্ষে সঠিক সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে হোঁচট খেতে হচ্ছে । সামনের দিনগুলো ভালো হবার কোন সম্ভাবনাই দেখছি না ।

শরীফ ওবায়েদ উল্লাহ্,

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৫৮:৪৯

সত্য প্রকাশে সাহসী হওয়ার সুযোগ বয়স ও বাস্তবতা জনিত কারনে সংকুচিত। এখন চোরকে চোর না বলে বলতে হবে মহান সাধু, মানবতার সৃস্টির বিশ্ব নেতা, ইতিহাস বিখ্যাত শ্রেষ্ঠ বীর। " হে চোর আপনি চুরি করে আমাকে সহ গোটা জাতীকে ধৈন্য করেছেন"

মুনির আহমেদ

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৫৪:৪৯

আপনার বক্তব্যটি অনেকাংশেই সমর্থন যোগ্য।এটা তো স্বীকার করতে হবে যে দেশটা গরীব। এখন রাস্তায় বের হলে মোড়ে মোড়ে শুধু সাহায্য প্রত্যাশিতদের মূখ। অনেক খেটে খাওয়া এবং নিম্ন আয়ের মূখ দেখা মিলে। এদের জন্যতো কর্মছারা বিকল্প কিছু আছে কি? আমরা ৭১'সালেও এত বড় অসহায়ত্ব বোধ করতাম না। সার্বিক অবস্থার উপর সরকার সিদ্ধান্ত নেয়, তবে এর ভীতর যদি কোন অদক্ষ্য ব্যক্তির মতামত গ্রহণের মত কিছু হয়ে থাকে, তাহলে তা দুশ্চিন্তারই হবে। তবে আমার তেমন ও মনে হয় না। তবে যেহেতু এখন করোনা রুগীর সংখ্যা ব্যাপক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে, সেহেতু সরকার আর কিছু দিন আর কঠোর অবস্থানে গেলে জনগণ অসমর্থন করতো না। তাতে আমাদের খারাপ কিছু হত না। আমাদের আরেকটু কষ্ট্য সইতে হোত। ধন্যবাদ।

শেলী

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৫৩:৫১

আমাদের সরকার প্রথম থেকেই সব কিছু গোপন করতে গিযেই আজ দেশের এই অবস্হা. সবসময় লুকোচুরী ভাল নয়!

এস এম কা‌সে

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৫০:০৪

তাহ‌লে আমরা কি চুড়ান্ত লকডাই‌নের দি‌কে যা‌চ্ছি?

কাজী সোহেল আহম্মেদ

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৪৬:২৪

মতি ভাই, সাবধানতা সর্তকতা সত্যভাষন আতংক ভয় এই গুলি মানুষ পেলেও সরকার মনে হয় পায় না, সরকারের মন্ত্রী বাহাদুর দের কেউ এখনো মারা যায় নাই।নাটের গুরু রাও আইসিইউতে যায় নাই।তাই এত তূচ্ছ তাচ্ছিল্য।

মোহম্মদ হারুণ উর রশী

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৪৬:২১

খুব সুন্দর লিখেছেন ।আপনি channel I এর রাত 12 টার সংবাদ পত্রে বাংলাদেশ এ কেন আসেননা ।আপনাকে ছাড়া ঐ অনুষ্ঠানটি ভাল লাগেনা

বাবুল চৌধুরী এইচ এম

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৪৫:৩৫

আপনার আলেখিত প্রত্যেকটি তত্ত্বই মুল্যবান, কিন্তু এতে একমাত্র ক্ষমতাসীন সরকারকে দোষারোপ করা মোটেও সুচিন্তিত মতামত হতে পারেনা। আমরা এমন দেশে বাস করি যে করোনা ভাইরাস সংক্রমিত দেশের মধ্যে সবচেয়ে করুন অবস্থার দেশ ইটালী ফেরত প্রবাসীদের কোয়ারেন্টাইনের জন্য অনুরোধ করলে তারা দেশের সরকারী সিস্টেমকে অশ্রাব্য গালিগালাজ করে কোয়ারেন্টাইনে যেতে অস্বীকৃতি জানায়, সরকারী প্রশাসন জনপ্রতিনিধি ও মিডিয়ার মাধ্যমে সতর্ক করার পরেও বাঙ্গালী করোনা ভাইরাস মহামারীকে বিশ্বাস ই করতে চাহেনা এইজন্য যে দেশের ধর্মগুরুরা জনগণকে এইবলে আশ্বস্ত করেছেন যে ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়া মুসলমানদের করোনা ভাইরাস হতেই পারেনা ইহা শুধুমাত্র অমুসলিমদের জন্য, উল্লেখযোগ্য যে লকডাউন ও সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য আমাদের প্রতিবেশী দেশ ভারত পাকিস্তান মিয়ানমার শ্রীলঙ্কান পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যেভাবে সেখানকার জনগণের উপর লাঠি ডান্ডা ব্যবহার করেছে সে হিসাবে বাংলাদেশে এধরনের ব্যবস্থা নিলে সরকারের বিরুদ্ধে জনগণকে উস্কানী দিয়ে গণঅভ্যুত্থান সংগঠিত করা হতো। বেয়াড়া জনগণ ও নিরুপায় সরকার তাই করোনা ভাইরাসকে নিয়তি হিসাবে মেনে নিয়ে সামনে এগোতে বাধ্য হচ্ছে।

Kamal hussain

২০২০-০৫-২৯ ০৬:৩৮:১২

Moty bhai Thanks for your article it's very realistic. But would think Hasina government have power to investigate aginist md Nasim ex health minister. Not possible. We are waiting for the judgement from the Rabbil Alamin. Insha Allah sooner.

মুমতাজ আহমদ

২০২০-০৫-২৯ ০৬:১৫:০১

অসংখ্য ধন্যবাদ মতি ভাই দুরদান্ত এ লেখার জন্য। এমন কুটনৈতিক লেখা কেবল আপনাকে দিয়েই সম্ভ। আপনি দীর্ঘজীবি হোন এ দুয়া করি

Shahidul Islam

২০২০-০৫-২৯ ০৫:২৭:১৬

ধন‍্যবাদ আপনাকে সত‍্য ও বাস্তবতাকে নিয়ে লেখার জন্য। এই মুহূর্তে আপনাদের মতো মানুষের খুব দরকার বাংলাদেশের।

Kabir

২০২০-০৫-২৯ ১৮:২০:২৬

আপনার কাছ থেকে বাস্তব এবং বস্তুনিষ্ঠ কিছু মতামত ভিত্তিক কিছু আর্টিকেল সবাই আশা করে। কেউ তো কিছু বলে না। শুধু তোষামোদি। কেউ ব্যাবসার জন্য তোষামোদ, কেউ চাকরী হারানোর ভয়ে তোষামোদ,কেউ পদোন্নতির জন্য তোষামোদ, কারও প্রমোশন দরকার তাই তোষামোদ, কারও বড় নেতা হওয়ার তোষামোদ, কারও মন্ত্রী হওয়ার জন্য তোষামোদ। আপনার তো তোষামোদের দরকার নাই। তাই লিখুন। জনগণ আপনার লেখার মাধ্যমে জানতে।চায়।

asm s

২০২০-০৫-২৯ ০৪:২৯:৫৩

সত্য প্রকাশ সাহসী মানুষের কাজ; লেখককে ধন্যবাদ।

Abdul Matin Mohammed

২০২০-০৫-২৯ ১৭:২৭:৪৯

Sotto Babu mara geche eta mittha proman houk.

আমানুল হক

২০২০-০৫-২৯ ০৪:১৫:৩১

ধন্যবাদ,বাস্তব সত্য কথা তুলে ধরার জন্য , সাহসী ভূমিকার জন্য। এত মিডিয়া এত সাংবাদিক কিন্তু কেউ সাহসী ভূমিকা পালন করতে পারে না।

হাবিব

২০২০-০৫-২৯ ০৩:৪২:২৬

আপনাদের মত দুই চার জন মানুষ আছে বলে পেপার দেখি, পড়ি,নুরুল কবির শাহিন, মোর্তজা এরা ছাড়া তোকেউ সত্য প্রকাশ করে না এ সেক্টরের সবাই এখন সরকারের চাটুকার, দালাল,

আবুল হোসেন

২০২০-০৫-২৯ ০৩:৩৪:১৪

আমরা চরম পরিণতির দিকে এগুচ্চি।চারিদিকে হাহাকার। রোগী,মৃতদের আত্মীয়ের কান্নার আওয়াজে আকাশ বাতাস প্রকম্পিত। এখনো হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য, পরীক্ষার জন্য সবাই ছুটছেন।

রবিউল হোসেন

২০২০-০৫-২৯ ০৩:২৮:২৩

কথা গুলো অবশ্যই সত্যি এবং খুবই বাস্তবতা, সরকার ও নীতি নির্ধারকদের একটু ভালো করে চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ।

কাজী নিয়াম

২০২০-০৫-২৮ ১৯:২৯:৩৫

লেখাটা দারুন ছিলো ।

HabiburRahmankhan

২০২০-০৫-২৮ ১৬:৩১:৩৯

Very god reoporting

শেখ শহিদুজ্জামান

২০২০-০৫-২৮ ১৪:৪৩:১৩

অত্যান্ত সত্য কথাগুলো উঠে এসেছে লেখার মাঝে।বর্তমান অবস্থায় লকডাউন তুলে নিলে দেশের পরিস্থিতি আরও ভয়ানক হবে বলে আমি মনে করি।তবে বর্তমান স্বাস্থ্য ব্যবস্থা দিয়ে হবেনা এহ্মেত্রে সেনাবাহিনীর সহযোগীতা নিলে ভালো হয়।

মোঃ তানভীর আলম রুশো

২০২০-০৫-২৮ ১৩:৪৪:৫১

মানুষই যদি না বেচে থাকে তাহলে অর্থনীতি কিভাবে বেচে থাকবে, আর গরিবের পেটে লাথি মেরেই বড় লোক বেচে থাকে, গরিবের জন্যই সবকিছু খুলে দেওয়া হয়েছে বড় লোকতো ঘরেই থাকবে, ভূগলে গরিব ভূগবে- মরলে গরিব মরবে তাতে নীতি নির্ধারকদের কিইবা যায় আসে, আল্লাহ্ আমাদের সকলকে হেফাত করুন।

Md Athikur Rahman

২০২০-০৫-২৮ ১১:২৩:৪৪

Khub bastob shommoto

Toffazul

২০২০-০৫-২৮ ১১:১৯:৫৪

স্যার সরকারের কাছে সাধারণ মানুষের মতামতের কোনো মূল্য আছে? দ্বিতীয় বারের মত লকডাউনের প্রস্তুতি নিলেই মনে হয় ভাল হবে ।

আকতারুল আলম মানিক

২০২০-০৫-২৮ ১০:৫৬:১৯

প্রতিটি বাক্যের সাথে সহমত।আমাদের সরকার শুধু চাঁপাবাজীতে আছে বাস্তবে নাই।সরকারি দলের চুরির কারোনে আজ দেশের বেহাল অবস্থা। কম্বল চুরি,ভোট চুরি,ত্রান চুরি,নগদে টাকা চুরি,ব্যাংক লুট,শেয়ার বাজার কোনকিছুই তারা বাদ দেয়নি।প্রতিবাদ করলেই গুম।ক্যাডার বাহিনী, পুলিশ বাহিনী দিয়ে জনগনের কন্ঠ স্তব্ধ করে দেয়।এখন বাঁচার উপায় করোনা।

Reza

২০২০-০৫-২৮ ১০:২৫:০২

সরল বাক্য প্রয়োগে অবশ্যই কঠিন সত্যের উম্মোচন কিন্তু এ বীর জনতা আইনের/ সচেতনতার প্রতি   সম্মান দেখাতে যে অভ্যস্ত নয়।

ঊর্মি

২০২০-০৫-২৮ ২২:৩২:৫২

"কোন তদন্ত হয়নি। কারণ অজ্ঞাত" - একটু ভূল করলেন, "অজ্ঞাত" নয়, "জ্ঞাতসারে অজ্ঞাত"

A S Dilshad Ahmed

২০২০-০৫-২৮ ০৯:০৩:৩৭

15 তারিখের পর কি করবে সরকার ? একা মরে লাভ কি সকলকে নিয়ে মরি কি বলেন ? আর ওদিকে ডাক্তার জাফরুল্লা চৌধূরী সাহেবও আইসোলেশনে । দেরী করলে বেশ ভালো কথা বলার লোক কমবে । যত টেস্ট তত মাথা ব্যথা ।

Hasan Shareef Ahmed

২০২০-০৫-২৮ ২১:৪১:৫৪

We are very unfortunate.

Shwapohin

২০২০-০৫-২৮ ০৮:১১:১৪

Plz Prime minister only 14 days 144 den.

শাহ আলম মানিক

২০২০-০৫-২৮ ০৭:৪১:১৯

কে শুনে কার কথা! "আমিত্ব"র রাজনীতি চলে যেখানে।

Nasir uddin

২০২০-০৫-২৮ ০৭:৩৮:৩১

Lockdaown to sorkeroi maneni.garments shopping mall khule diche..to ekhon keno buddi jibira boltechen j lockdown keno sitil korche .manush ki diner por din na kheye mara jabe?sorker ei jaigai berthoter porichoy diyeche..jader bank a jomanu jomanu taka ta to boro boro kotha bolbei, jader pethe vat nei tader kotha ektu cjinta korun.ache tara Sorker to prothom thekei vul kore asche re vai.probashiderke niontron korleito hoto .. taderk baddhotamulok qureintaine pathailei to COVID 19 niyontron korte partho.ekhon to r somoy nei ..manush 2 mash somoy niyche.r somvob na ...manush ki na kheye mara jabe?sorker to berto hoye geche.

Hassan Abdul Gani

২০২০-০৫-২৮ ০৭:৩৭:০৩

জোর করে জনগণের কাঁধে চেঁপে বসা এই অযোগ্য সরকার জনগণের মঙ্গল চায় না। তারা শুধু লুটেপুটে খেতে চায়।

rafiqul Islam

২০২০-০৫-২৮ ২০:২৯:৩৬

thanks brother. your opinion is very good but government decide others ways. some peoples of Bangladesh death corona virus don"t government and her party AL.

কাজী সোহেল আহম্মেদ

২০২০-০৫-২৮ ০৭:১৭:৪৯

এই মুহূর্তে কোন টা ঠিক, কোন টা বেঠিক, তা মনে হয় আল্লাহর উপর ছেড়ে দিয়েছে।মতি ভাই,জীবন হয়ে গেছে টার্গেট লেস সেখানে মানুষের আবার জীবন।তা তুচ্ছ তাচ্ছিল্য অনেক আগেই হয়ে গেছে।করোনা আসার পর মানুষ কে উম্মাদ। আর পাগলের মতো করে দিছে। লেখক হিসেবে লিখছেন কিন্তু মনে হয় কেউ পড়ছেও না কান তো তাদের কবেই বধির হয়ে গেছে।

ময়নুদ্দীন আহমদ

২০২০-০৫-২৮ ০৭:০৭:৩৪

আসলেই সত্যবাবু মারা গেছেন।

এনায়েত

২০২০-০৫-২৮ ০৬:৫৬:১৩

করোনা ভাইরাস নিয়ে সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে শুরু থেকেই বিভ্রান্তিকর বক্তব্য শুনে আসছি। যার কারণে আজ এঅবস্থার সৃষ্টি হলো। এখন সব দোষ জণগনের কাঁধে চাপিয়ে দওয়ার অপচেষ্টা চলছে।

ফারুক আহমেদ

২০২০-০৫-২৮ ০৬:৩৭:৩৭

সত্য এবং বাস্তবধর্মী লেখা।কিন্তু হায় আমরা বুঝার চেষ্টা করিনা কারন আমরা সব জায়গায় সবকিছুতে রাজনিতী আর জিতার ফর্মূলা খুঁজি।

shiblik

২০২০-০৫-২৮ ১৯:১৩:২৭

Government is making the perfect decision under the circumstances. We are world-class pussy cats except a few who once in a while dare to write a few columns or protest against injustice.

Nurul Choudhury

২০২০-০৫-২৮ ১৯:০২:২৩

What a confused government. May Allah SWT help unfortunate Bangladeshis.

rassel

২০২০-০৫-২৮ ১৮:৫২:২০

amade jiboner ki kono mullo nei ?

Aqm

২০২০-০৫-২৮ ০৫:৪৭:৫০

আমাদের জীবনের দরকার কি অর্থনীতি টিক তাকালেই হলো! কিছু মানুষ মরবে কিছু মানুষ মিলিয়নার হবে । তাতে কি ? করোনা কি আর গরীব ধনী চিনে ? আজ আমার তো জেনে রাখুন কাল তোমার।

বাতেন চৌধুরী

২০২০-০৫-২৮ ০৫:৩২:৪০

অন্তত: ১৬ ই জুন পর্যন্ত লক ডাউন রাখা যেতো এখন আল্লাহই আমাদের ভরষা

রফিকুল

২০২০-০৫-২৮ ০৫:২৪:২৯

সবকিছুতেই মিথ‍্যের ফুলঝুরি। সরকার অনেকটা উপায়হীন। কি করলে কি হবে বা এই মুহূর্তে কি করা উচিৎ, আমার মনে হয় সরকারের উর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তিরা ভাল করে বুঝে উঠতে পারছেনা।এই জন‍্য সিদ্ধান্ত হীনতায় ভুগছেন।

Mohiuddin Palash

২০২০-০৫-২৮ ১৮:২২:২৫

জনগনের জীবন আসলা বড় তুচ্ছ, জনগনের পাল্স কেউ বুঝেনা। আমরা করোনা থেকে শক্তিশালী না কি জনগনের উপর দায়বদ্ধতা নাই,কোনটা ? কি ভাবে এমন পরিস্থিতি ছুটি বাতিল করলো ? প্রয়োজন ছিলো জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা। উল্টো তথাকথিত সাধানর ছুটিও বাতিল করে দিলো। প্রথানমন্ত্রীকে কে দিলেন এই পরামর্শ শেষ বিকালে এসে এটা কি করলো একটা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত ? দেশে ভয়াবহ পরিণতি হতে পারে এর জন্য দায় কে ? ঢাকার বাহিরেও এখন ভয়ংকর ভাইরাসের থাবা যখন তুঙ্গে এর মধ্যে কেন এই ভয়ংকর সিদ্ধান্ত নিলো ?

মো: হেদায়েত উল্লাহ

২০২০-০৫-২৮ ০৪:৫৮:৫৬

মুল্যতো সব সময়ে জনগন দিচ্ছে এবং দিতে থাকবে

Raju

২০২০-০৫-২৮ ১৭:১৪:৫৪

করোনার চেয়ে ক্ষুধা বড়।বাড়ি ভাড়ায় চলে যায় আয়ের ৮০% কি করবো ছেলে মেয়ে নিয়ে তো রাস্তায় থাকতে পারছি না।

আহমেদ সাইফুল হুদা

২০২০-০৫-২৮ ০৪:০৩:৫৯

অরন্যে রোধন

টুটুল

২০২০-০৫-২৮ ০৪:০৩:১৮

সরকার একটা ভুল সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে, যার জন্য চরম মূল্য দিতে হবে এদেশের সাধারণ জনগনকে। সরকারের উচিত বিষয়টি আরও গভীর ভাবে চিন্তা করা।

Md. Harun Al-Rashid

২০২০-০৫-২৮ ১৬:৫৩:০১

মনে হচ্ছে মানব জীবনে মৃত্যু যখন অবধারিত তখন মৃত্যুর প্রক্রিয়া বিচার করে কি লাভ । করোনায় মৃত্যু বা উপসর্গ নামক গননা বর্হিভূত মৃত্যু বা সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু অথবা এনকাউন্টারে বা আগুনে পুুুড়ে সবইতো একই মৃত্যু।কেবল বিশেষ কারো কারো বেলায় চির নিন্দ্রায় শায়িত হওয়া, মেঘের ওপাড়ে বা আকাশের সীমায় হারিয়ে যাওয়া ছাড়া (?)। এখানে জেনে শুনে সত্য গোপনকারি ধরে নিয়েছেন (যদি পরকালেে বিশ্বাস করেন) আখেরাতের সকল শাস্তি অন্যের জন্য বরাদ্ধ।

ইসলাম

২০২০-০৫-২৮ ০৩:৪৭:২৪

অন্যের ভুল থেকে আমাদের শিক্ষা নেওয়া উচিত ছিল। আমরা অনেক অনেক সময় পেয়েছি যাহা ইতালি ইংল্যান্ড আমেরিকা পায়নি। কিন্তু আমাদের ডিসিশন মেইকার রা ভুল ডিসিশনের কারনে মানুষের জীবন নিয়ে ব্যবসা করা হচ্ছে । আল্লাহ্ হেফাজতের মালিক দোয়া করি আল্লাহ্ যেন সবাইকে ভালো রাখেন সুস্থ রাখেন।

anwar hossain

২০২০-০৫-২৮ ১৬:০৮:৩৭

সত্য বুঝার ক্ষমতা নাই , সত্যকে গুজব বলে ধামাচাপা দেওয়া আর নিপীড়ন নিষ্পেষণ করার ক্ষমতা আছে । হে আল্লাহ্‌ ! আমাদের হেফাজত করুন । আমীন !!

নহার

২০২০-০৫-২৮ ১৬:০৪:০৫

সত্য বুঝার ক্ষমতা নাই , সত্যকে গুজব বলে ধামাচাপা দেওয়া আর নিপীড়ন নিষ্পেষণ করার ক্ষমতা আছে । হে আল্লাহ্‌ ! আমাদের হেফাজত করুন । আমীন !!

Mostafizur rahman, j

২০২০-০৫-২৮ ০০:১৮:০১

আমাদের বতমান সরকারে কি এই সত্য কথাগুলো বোঝার মতো কোন বিবেগমান লোক নেই ?

sk

২০২০-০৫-২৮ ১২:৪৩:৩১

This true and very Important

সৈয়দ বাহার

২০২০-০৫-২৮ ১২:২০:২২

শুরু থেকেই এই সরকারের উদ্দেশ্য গন্তব্য অজ্ঞাত ছিল, অনেক বিশেষজ্ঞ্রাই বুঝে উঠতে পারছিলেন না। এখনো সব ব্যাপারেই অজ্ঞাত'ই রয়ে গেছে!!

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

কথার মারপ্যাঁচ

৩ আগস্ট ২০২০

সফলতার মূলমন্ত্র!

২৭ জুলাই ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত