পশ্চিমবঙ্গে আরো ১ করোনা আক্রান্ত শনাক্ত, ভারতে মৃত্যু বেড়ে ৫

কলকাতা প্রতিনিধি

ভারত ২১ মার্চ ২০২০, শনিবার

উদ্বেগজনক পরিস্থিতি পশ্চিমবঙ্গসহ গোটা ভারতে। কলকাতায় আরো এক তরুণের শরীরে গতকাল নোভেল করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, করোনা আক্রান্ত এক ইতালির মৃত্যু হয়েছে এ দিন জয়পুরে। এই নিয়ে ভারতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫। আক্রান্তের সংখ্যা আপাতত ২২৩। মুম্বই, পুণে ও নাগপুরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। কলকাতায় গতকাল যে তরুণের শরীরে নোভেল করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া গিয়েছে, তিনি গত ১৩ই মার্চ লন্ডন থেকে ফিরেছিলেন শহরে। তারপর জ্বর এবং সর্দি-কাশির মতো উপসর্গ দেখা দেয়ায় এত দিন গৃহ পর্যবেক্ষণে ছিলেন।
পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় দু’দিন আগে তাকে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখান থেকে তার লালারসের নমুনা পাঠানো হয় নাইসেডে (ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব এন্টেরিক অ্যান্ড কলেরা ডিজিজ)। গতকাল তার রিপোর্ট আসার পর জানা গেছে, তিনি কভিড-১৯ ভাইরাসে আক্রান্ত। এই মুহূর্তে হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে তাকে। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, লন্ডনে পাঠরত তার দুই সহপাঠীও করোনায় আক্রান্ত। তাদের মধ্যে একজন চন্ডীগড়ে, অন্যজন ছত্তিশগড়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ দপ্তর সূত্রের জানা যায়, কলকাতাসহ গোটা রাজ্যে গৃহ পর্যবেক্ষণে রয়েছেন ১৯ হাজার ৬০২ জন। আর করোনা সন্দেহে গোটা রাজ্যে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ২৯ জন। তাদের মধ্যে ২ জনের রক্তপরীক্ষা ‘পজিটিভ’ হয়েছে। বিদেশ থেকে ফেরার পর কোয়ারেন্টিনে না থাকার জন্য বিরক্ত পশ্চিমবঙ্গ প্রশাসন কড়া হুঁশিয়ারি দিয়েছে। কলকাতা পুলিশ গতকাল বিবৃতি প্রকাশ করে জানিয়েছে, এ বার থেকে বিদেশ ফেরত সকলকেই বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টিনে যেতে হবে। নইলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রয়োজনে তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখতে বাধ্য হবে রাজ্য প্রশাসন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও একই নির্দেশ জারি করেছেন। এর পাশাপাশি গতকাল ফের একবার রাজ্যবাসীকে আশ্বস্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার বক্তব্য, করোনা আক্রান্ত হলেই ভয় পেতে হবে না। সঠিক সময়ে চিকিৎসা হলে সকলেই সুস্থ হয়ে উঠবেন। এ দিন নবান্নে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে মমতা বলেন, করোনায় আক্রান্ত হলেই ভয় পাবেন না। বরং উপযুক্ত চিকিৎসা করান। সঠিক সময়ে চিকিৎসা হলেই সুস্থ হয়ে যাবেন। রাজ্যবাসীর সুবিধার্থে আপৎকালীন ত্রাণ তহবিল খোলা হচ্ছে বলেও এ দিন ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী। জরুরি পরিস্থিতিতে এই তহবিল ব্যবহার করা হবে। এর পাশাপাশি, এই বিপদের দিনে ওই তহবিলে অনুদান করতেও সাধারণ মানুষকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

উত্তরপ্রদেশ, অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ুতে নতুন করে কয়েক জন সংক্রামিত হয়েছেন। গোটা দেশে নিরিখে মহারাষ্ট্রে সংক্রমণ এখনও পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি। চন্ডিগড়েও প্রথম করোনা আক্রান্ত ধরা পড়েছে। করোনা ঠেকাতে জমায়েতে রাশ টানতে চাইছে বিভিন্ন রাজ্যের প্রশাসন। তাই উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থানসহ বিভিন্ন  রাজ্যের কিছু কিছু জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। কাশ্মীরে ট্রেন পরিসেবা আপাতত বন্ধ রাখা হচ্ছে। বন্ধ করা হয়েছে দেশের বিভিন্ন মন্দির ও দরগা।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Tom

২০২০-০৩-২১ ২০:১৯:১২

Now the indian people and the remaining world people will understand the pain of lockdown in kashmir.

আপনার মতামত দিন



ভারত অন্যান্য খবর

ব্যতিক্রমী মমতা

২৬ মার্চ ২০২০



ভারত সর্বাধিক পঠিত