জাবিতে আন্দোলন অব্যাহত এক সপ্তাহের আল্টিমেটাম

শেষের পাতা

জাবি প্রতিনিধি | ১৪ নভেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:২৮
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ এনে ভিসি’র অপসারণ এবং শিক্ষার্থীদের হল খুলে দেয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল দুপুরে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ব্যানারে মিছিলটি কলা ও মানবিক অনুষদ (নতুন কলা) সংলগ্ন মুরাদ চত্বর থেকে শুরু হয়ে পুরাতন রেজিষ্টার ভবনে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় । সমাবেশে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সাংগঠনিক সম্পাদক শোভন রহমানের সঞ্চালনায় দর্শন বিভাগের অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, এই আন্দোলন বিশ্ববিদ্যালয়কে রক্ষা করার আন্দোলন। ৫ই নভেম্বর ছাত্রলীগের হামলার পর শতশত শিক্ষার্থী প্রতিবাদ জানাতে হল থেকে বের হয়ে এসেছিল। আমাদের সমাধানের পথে আসতে হবে। ভূল পথে না হেঁটে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকলের অংশগ্রহনে সমাধানের পথে আসতে হবে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসির কাছে দুর্নীতির অভিযোগ দেয়া হয়েছে তার তদন্ত দ্রুত শুরু করতে হবে। তদন্তে ভিসি নির্দোষ প্রমানিত হলে তিনি নিজ পদে বহাল থাকবেন।
কিন্তু শিক্ষার্থীদের বাসায় গিয়ে পরিবারকে হয়রানি করা হচ্ছে। তদন্তের সদিচ্ছাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। বিশ্ববিদ্যালয় যতই বিলম্বে খুলে দেয়া হোক না কেন যদি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের তদন্তে সদিচ্ছা না থাকে তাহলে শিক্ষার্থীরা আবার মাঠে নেমে আসবে এবং বিশ্ববিদ্যালয় আবারো সংকটের দিকে যাবে। আন্দোলনের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, বর্তমানে শিক্ষা মন্ত্রনালয় ও ইউজিসি থেকে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়নি। তারা তদন্ত কমিটি গঠনের উদ্যোগ নিবে বলে জানিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়কে অনিরাপদ করে নিরাপত্তার দোহাই দিয়ে প্রশাসন বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দিয়েছে, হল ভ্যাকেন্ড করে দিয়েছে। সন্ত্রাসী হামলা, মামলা দিয়ে আন্দালন দমন করার পথকে অস্বীকার করে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আন্দোলন দমাতে ছাত্রলীগকে দিয়ে হামলা চালিয়ে অবৈধভাবে ক্যাম্পাস বন্ধ করেছে দাবি আন্দোলনকারীদের।এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, অধ্যাপক সাইদ ফেরদৌস , অধ্যাপক শামিমা সুলতানা , অধ্যাপক তারেক রেজা , অধ্যাপক জামালুদ্দিন রনু, অধ্যাপক খবির উদ্দিন, অধ্যাপক খন্দকার হাসান মাহমুদ, সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদ, জাবির সাংস্কৃতিক জোট ও প্রগতিশীল ছাত্র জোটের নেতা কর্মীরা।

হল খুলে দেয়ার দাবি : এদিকে হল ভ্যাকেন্ডের সিদ্ধান্ত প্রতাহার চেয়ে গতকাল বিকেল চারটায় সংবাদ সম্মেলন করেছে দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর ্তু ব্যানারের সংগঠকরা ।তারা আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে হল খুলে দেয়ার দাবি জানান। আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক মুশফিকুস সালেহীন বলেন, আগামী ১ সপ্তাহের মধ্যে হল খুলে দেয়া না হলে আগামী ২২শে নভেম্বর ঢাকায় মহাসমাবেশ করবে শিক্ষার্থীরা। তবে এরই মধ্যে ভিসি কোন ধরনের সিলেকশন বোর্ড বসানে চেষ্টা করলে তা প্রতিহত করা হবে। আর ক্যাম্পাস খোলার পর আমরা এই ভিসিকে চাই না।
 


এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

mshamimkaiser

২০১৯-১১-১৪ ১৯:৫৩:৫৯

মামার বাড়ির আবদার

আপনার মতামত দিন

যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে তুরস্ক ও গ্রিস!

‘পুরস্কার নিয়ে আফসোস নেই আমার’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ডাকাতদের গোলাগুলি, নিহত ১

সমন্বয়হীনতা ও পর্যবেক্ষণের অভাবে বাজারে এমন অবস্থা

মাবিয়ার ইতিহাসের দিনে তিন স্বর্ণ বাংলাদেশের

বন্ধু সৈকত গ্রেপ্তার

তিন বিভাগের মধ্যে সমন্বয়ে গুরুত্বারোপ

ওবায়দুল কাদেরের বিকল্প কে?

দীর্ঘ হচ্ছে দুদকের অনুসন্ধান তালিকা বেশির ভাগই সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী

রাজধানীর পৃথকস্থানে দু’টি বাসে আগুন

বঙ্গবন্ধুকে ‘ডক্টর অব ল’ সম্মাননা দেবে ঢাবি

জটিলতায় আটকে আছে ২ লক্ষাধিক ড্রাইভিং লাইসেন্স

‘আওয়ামী লীগ আমার আবেগ আমার অস্তিত্ব’

সভাপতি এমএ সালাম সম্পাদক আতাউর

রোহিঙ্গাদের অধিকার বিষয়ক অফিস বন্ধের নির্দেশ বাংলাদেশের

সমাধান খুঁজছে সিলেট বিএনপি