ব্রাহ্মণবাড়িয়া ট্রাজেডি

অটো ব্রেকে ইট দিয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন তূর্ণা নিশীথার চালক ও সহকারী

অনলাইন ডেস্ক

অনলাইন ১৩ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, ১০:০৭ | সর্বশেষ আপডেট: ৪:০১

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কসবায় ভয়াবহ ট্রেন দূর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ১৬ জন। আহত হয়েছেন শতাধিক। সোমবার দিবাগত রাত ২ টা ৪৮ মিনিটে উপজেলার মন্দবাগে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তূর্ণা নিশীথা ও সিলেট থেকে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেন দুটির মধ্যে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে। এ সময় একটি ট্রেনের একাধিক বগি আরেকটি ট্রেনের কয়েকটি বগির ওপর উঠে যায়।

তূর্ণা নিশীথার চালক (লোকোমাস্টার) তাহের উদ্দিন ও সহকারী অপু-দে অটো ব্রেকে ইট দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ার কারণে ব্রাক্ষণবাড়িয়ার কসবায় উদয়ন এক্সপ্রেস ও তূর্ণার মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তাদের দুজনকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দুর্ঘটনার কারণ চালকের অসচেতনতাকে দায়ী করেছেন।

রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন ওই দায়িত্বশীল কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও তূর্ণার দায়িত্বরত কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানতে পেরেছি চালক ও সহকারী অটো ব্রেকে ইট দিয়ে ঘুমিয়ে ছিলেন।

তিনি বলেন, ট্রেন অটো ব্রেক সিস্টেমে চলে।
ট্রেন তখনই চলে যখন ওই ব্রেক সিস্টেমে পা বা অন্য কিছু দিয়ে চেপে ধরা হয়। ব্রেকে চাপ না দিলে ট্রেন চলে না। তূর্ণার চালক ও সহকারী ব্রাক্ষণবাড়িয়ার কসবায় পৌঁছার আগেই ব্রেকে ইট দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন।

তিনি জানান, তূর্ণা নিশীথা বিরতিহীন ট্রেন। মন্দবাগে দুই ট্রেনের ক্রসিংয়ের সময় সিগন্যাল পেয়ে উদয়ন মেইন লাইন থেকে লুপ লাইনে প্রবেশ করছিল। ট্রেনের নয়টি বগি লুপ লাইনে চলে যাওয়ার পর দশম বগিতে আঘাত করে তূর্ণা নিশীথা। অথচ তূর্ণাকে সিগন্যাল দেওয়া হয়েছিল।



পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

রিপন

২০১৯-১১-১৩ ১৮:৪২:১৮

ব্রেকে চাপ দিলে না থেমে চলে, আর ব্রেক থেকে চাপ উঠিয়ে নিলে ট্রেন থেমে যায় - এমন ট্রেন আমদানি কে কত টাকা মেরে দিয়ে আমদানি করেছে? তাকে বিচারের কাঠগড়ায় তোলা দরকার। ড্রাইভার ঘুমাবে কেন? নিশ্চয়ই তাদেরকে বহু চাপে রাখা হয়েছে, ওভার ডিউটি দিয়ে গাধার মতো খাটানো হচ্ছে, পর্যাপ্ত বিশ্রাম ঘুমের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। রেল, না যোগাযোগ মিন্তির দায়িত্বে পড়ে এসব? তাদেরক্ বরখাস্ত করে আদালতের কাঠগড়ায় হত্যা মামলায় ওঠানো উচিৎ।

দাদু ভাই

২০১৯-১১-১৩ ০৪:৫৫:০৩

ট্রেনের রেইল কন্ট্রোল করে করে কে?

Md.Mohiuddin Monsi

২০১৯-১১-১৩ ০৩:৫১:২৯

শুধু ট্রেন নয়, এদেশে সরকারী কিছু মিনেই নিলামের মাল। মনে হয় কোনো জবাবদিহিতা নেই। যে যেভাবে পারছে লুটেপুটে খাচ্ছে। দেখার ও শাসন এবং নিয়ন্ত্রণ করার মতো কেউ নেই। 'জোর যার মুল্লুক তার'। ৩০ লাখ মানুষ দেশ স্বাধীনে রক্ত কি এই জন্য দিয়েছিলো?

Obak

২০১৯-১১-১৩ ১৬:৩৩:৩৩

ট্রেনের মতো দেশেও ইট বালুর ট্রাক দিয়ে গণতন্ত্র কেড়ে নেয়া হয়েছে এরপর থেকে কোথাও আর জবাবদিহিতা নাই।

Kazi

২০১৯-১১-১২ ২৩:৩৯:১০

ইট চালাল ট্রেন।

জাফর আহমেদ

২০১৯-১১-১২ ২৩:৩০:০৯

ট্রেন চালকের দোষ কোথায়। দেশ ই চলতেছে অটোব্রেকে।

আপনার মতামত দিন

অনলাইন -এর সর্বাধিক পঠিত