রাঙ্গা অনুতপ্ত, বক্তব্য প্রত্যাহার, তবে...

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৪৭
স্বৈরশাসন থেকে মুক্তি বা গণতন্ত্র দিবস ১০ই নভেম্বরে দেয়া নিজের বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। তার ওই বক্তব্যে সর্বত্র যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে তার প্রেক্ষাপটে মঙ্গলবার দুপুরে তিনি এ জন্য নূর হোসেনের মায়ের প্রতি দুঃখ প্রকাশ করেন। বনানীস্থ জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে গণমাধ্যমের উদ্দেশ্যে পঠিত বিবৃতিতে রাঙ্গা বলেন, অনিচ্ছাকৃত ভাবে আমার মুখ থেকে সেদিন নূর হোসেন সম্পর্কে কিছু অযাচিত কথা বেরিয়ে গেছে, যা নূর হোসেনের পরিবারের সদস্যদের মনে আঘাত করেছে, আমি এ জন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত। আমি আমার বক্তব্যের জন্য অনুতপ্ত। তিনি তার বক্তব্যে নূর হোসেনের মায়ের কথা স্মরণ করে বলেন, তিনি একজন মা। আমিও একজন মায়ের সন্তান। আমি তাকে কষ্ট দিয়েছি।

তিনি কেঁদেছেন, তার চোখের পানি আমি সহ্য করতে পারিনি।
আমি তার প্রতি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। এটা সত্য যেভাবেই হোক নূর হোসেন মারা গেছেন। মা সন্তানহারা হয়েছেন। তবে সেদিন কেন তিনি এমন বক্তব্য দিয়েছিলেন? তার একটি ব্যাখ্যাও বিবৃতির সূচনাতে দেয়ার চেষ্টা করেন রাঙ্গা। বলেন, প্রতি বছর নূর হোসেনের মৃত্যুবার্ষিকীর দিনে কয়েকটি সংগঠনের আলোচনা, বক্তব্য এবং বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়। এমনকি তাকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালিও করা হয়। ফলে জাতীয় পার্টির কর্মীদের মধ্যে ক্ষেভের সৃষ্টি হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। সেই প্রেক্ষিতে উত্তেজনার মধ্যে বক্তব্য প্রদানকালে আমার মুখ ফসকে কথাগুলো বের হয়ে যায়। নূর হোসেনের পরিবারের প্রতি প্রয়াত প্রেসিডেন্ট এরশাদ সমব্যাথী ছিলেন দাবি করে জাপা মহাসচিব বলেন, বক্তব্য প্রত্যাহারের পর আশা করি এ নিয়ে আর কোন ভুলবুঝাবুঝির অবকাশ থাকবে না।

উল্লেখ্য, রোববার জাতীয় পার্টি মহানগর উত্তর শাখার উদ্যোগে গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় শহীদ নূর হোসেন ইয়াবা-ফেসসিডিলে আসক্ত ছিলেন বলে মন্তব্য করেছিলেন মসিউর রহমান রাঙ্গা। তিনি তার বক্তব্যে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কেও বিরূপ মন্তব্য করেন। তার বক্তব্যে রাজনীতি এবং গণতন্ত্রমনা সাধারণ মানুষের  নিন্দার ঝড় ওঠে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে সমালোচনার ঝড়। রাঙ্গা নিজে ইবাবা খেয়ে এমন বক্তব্য দিয়েছেন কি-না? সেই ট্রলও হয়। তার বক্তব্যের প্রতিবাদে সাধারণ মানুষের সঙ্গে রাস্তায় নামে গণতন্ত্রের পোস্টার খ্যাত শহীদ নূর হোসেনের মা ও পরিবারের সদস্যরা। তারা রাঙ্গার বিচারের ভার জনগণের ওপর ছেড়ে দিয়ে তাকে জনরোষ থেকে বাঁচতে দেশবাসীর প্রতি নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান। কিন্তু রাঙ্গা নূর হোসেনের মায়ের প্রতি দুঃখ প্রকাশ করলেও সংক্ষুব্দ জনগণের কাছে এখনও ক্ষমা চাননি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গাম্বিয়াকে সব ধরণের সমর্থন দেবে কানাডা ও নেদারল্যান্ডস

বাংলাদেশকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে ভিয়েতনাম

রেকর্ড

সেই ক্যারিশমা তিনি ব্যয় করছেন জেনারেলদের পেছনে

রোহিঙ্গাদের বিচার পাওয়ার আশা থাকছে

বিপণি বিতানে ছাড় দিয়ে বিক্রি বাড়ানোর চেষ্টা

দুর্নীতি মুক্ত হলে দেশ আরো এগিয়ে যেতো

অজয় রায় আর নেই

অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় দিনে সরকারি, রাতে বেসরকারি

কোনো শিশু ও নারী যেন নির্যাতনের শিকার না হয়

সাড়ে তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

‘উগ্রবাদ দমনে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে’

‘দিল্লি সফরে গুরুত্বপূর্ণ সব ইস্যুতেই আলোচনা হবে’

মাদক মামলায় সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে চার্জশিট

দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থনীতিকে ধ্বংস করা হয়েছে: ফখরুল

বাজি ধরে সড়কে প্রাণ গেল ২ জনের