‘সাকিবের সাজা বেআইনী’

ফেসবুক ডায়েরি

ডক্টর তুহিন মালিক | ৩০ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:৩৩
ICC এর Anti-Corruption Code অনুযায়ী সাকিব আল হাসানকে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি। সাকিবকে সাজা প্রদানের সিদ্ধান্তের ১১ নং অনুচ্ছেদে অপরাধ সংঘঠনের ৪টি ঘটনা ও ৩টি দিন-তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে। যথা-

১। ২০১৭ সালের নভেম্বরের মাঝামাঝি আগারওয়ালের সাথে সাকিবের বেশকিছু হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ চালাচালি হয়।
২। ২০১৮ সালের ১৯ জানুয়ারি আগারওয়াল সাকিবকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ পাঠায়।
৩। ২০১৮ সালের ২৩ জানুয়ারি আগারওয়াল আবার সাকিবকে হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ পাঠায়।
৪। ২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল সাকিব আইপিএল ম্যাচ খেলার দিন আগারওয়াল হোয়াটসঅ্যাপে সাকিবকে মেসেজ করে।
আইসিসি সাকিবের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে।
তদন্ত কমিটি ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি ও ২৭ আগস্ট সাকিবকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।
আইসিসি সাকিবের বিরুদ্ধে ICC Anti-Corruption Code এর অনুচ্ছেদ ২.৪.৪ অনুযায়ী ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর ৩টি ঘটনায় চার্জ আনে। এই তিনটি অপরাধ সংঘঠনের সময় ও তারিখ আইসিসির সিদ্ধান্তের ১৮ দফায় উল্লেখ করা হয়েছে এভাবে-

‘namely on 19 January 2018, on 23 January 2018 and on 26 April 2018.’
আইসিসি যে Anti-Corruption Code এর যে বিধান লঙ্ঘনের জন্য সাকিবকে সাজা দিয়েছে তা কার্যকর হয়েছে ২০১৮ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি থেকে। যা ICC Anti-Corruption Code এর ১১.৩ অনুচ্ছেদে উল্লেখ রয়েছে-

‘The Anti-Corruption Code shall come into full force and effect on 9 February 2018 (the “Effective Date”). It shall not operate to disturb any decisions and/or sanctions previously made under predecessor versions of the Anti-Corruption Code (including the Code of Conduct) or anti-corruption rules of National Cricket Federations. Nor shall its substantive provisions apply retrospectively to matters pending before the Effective Date. Instead, any case pending prior to the Effective Date, or brought after the Effective Date but based on acts or omissions that occurred before the Effective Date, shall be governed (a) as to substance, by the predecessor to the Anti-Corruption Code that was in force at the time of the alleged offence, subject to any application of the principle of lex mitior by the hearing panel determining the case; and (b) as to procedure, by this Anti-Corruption Code.’

অর্থাৎ এই কোড কার্যকরের তারিখের পূর্বের কোন ঘটনার ক্ষেত্রে ‘retrospective effect’ বা ‘পেছনের দিকে কার্যকর’ প্রয়োগ করা যাবে না। তাই এই কোড কার্যকরের তারিখের পূর্বের ঘটনার জন্য বর্তমান কোডের অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সাকিবকে সাজা প্রদান করা যাবে না।

সাকিবের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের ঘটনার তারিখগুলো হলো, ১৯ জানুয়ারি ২০১৮, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ এবং ২৬ এপ্রিল ২০১৮। অর্থাৎ দুটি ঘটনা ICC Anti-Corruption Code এর কার্যকরের অর্থাৎ ২০১৮ সালের ৯ ফেব্রুয়ারির আগের। ফলে উক্ত দুটি ঘটনার ক্ষেত্রে এই কোড অনুযায়ী শাস্তি প্রদান সম্পুর্ন বেআইনী। কারণ, ১৯ জানুয়ারি ও ২৩ জানুয়ারির ঘটনার সময় ২০১৮ সালের ICC Anti-Corruption Code এর অনুচ্ছেদ ২.৪.৪ এবং ৬.২ এর কোন অস্তিত্বই ছিল না। ফলে উক্ত দুটি ঘটনার ক্ষেত্রে Code এর অনুচ্ছেদ ২.৪.৪ লঙ্ঘণের অপরাধে ৬.২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী সাকিবকে সাজা প্রদান সম্পুর্ন বেআইনী।

যদিও আইসিসির ২০১৪ সালের একটি ICC Anti-Corruption Code ছিল। তবে উক্ত কোডের অধীনেও কিন্তু সাকিবের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। যেহেতু বর্তমান কোড অনুযায়ী কেবল ২৬ এপ্রিলের ঘটনা প্রযোজ্য তাই এই কোডের ৬.২ অনুযায়ী খুব বেশী হলে ৬ মাসের নিষেধাজ্ঞা হতে পারত।

তবে দুঃখের বিষয় হচ্ছে, আইসিসির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সাকিব আপিল কিংবা রিভিউ কোনটাই করতে পারবেন না।

ডক্টর তুহিন মালিকঃ আইনজ্ঞ ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Murad H Milon

২০১৯-১০-৩০ ০৬:০০:৪৭

India is bull sheet country. They helped us on his interest (1971) they never like to see some things better in Bangladesh. They are suckers ...

আব্দুর রহিম

২০১৯-১০-৩০ ০৪:৩৩:১৫

যেহেতু জুয়াড়ী ভারতের সেহেতু এইটা একটি পরিকল্পনা মতো করেছ ঐ জুয়াড়ী। ভাই হিন্দুদের মন বুঝা বড়ই কঠিন।

Citizen

২০১৯-১০-৩০ ১৬:০৯:২৮

BCB must look into the matter seriously and immediately.

Md. Harun Al-Rashid

২০১৯-১০-৩০ ১২:১৪:৫২

ডক্টর তুহিন মালিকের ব্যাখ্যা পড়ে মনে হলো ICC তাদের প্রনীত আইনের Textual Meaning থেকে বিচার না করে আইনের Exegeses বা তফসির করে শাস্তি নির্ধারন করেছে। পদ্মা সেতুর বেলায়ও এমনই ঘটেছিল যা কেনেডার উচ্চ আদালতে দূর্নীতির "অভিপ্রায় জনিত অপরাধ" সংঘঠিত হয়েছে এমন অপরাধ প্রমানে বিশ্ব ব্যাংক ব্যর্থ হয়েছে। ঘটনার ঘাত এমন তীব্র ছিল যে সাকিব এর আকর্ষিকতায় সকল আইনি দিক বিবেচনায় নিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার অবকাশ পায়নি। তা ছাড়া সম্প্রতিক দাবি দাওয়া নিয়ে BCB র উচ্চ মহলের সাথে একটা মন্দ বিশ্বাস চলমান আছে বিবেচনায় বিষয়টি নিয়ে খোলামেলা আলোচনা করার সুযোগ সীমিত হয়ে পড়েছিল। এমতবস্হায় BCB র নিকট আমাদের আবেদন, তাঁরা বিষয়টি পূর্নোরবিবেচনার জন্য ICC কে আনুরোধ করতে পারেন। আশাকরি BCB র আইন উপদেষ্টা বিষয়টি দেখবেন। মাঠের বাইরে এমন আইনি লড়াই ইতিহাসও হতে পারে।

মোক্তাদির হোসাইন

২০১৯-১০-৩০ ১১:৩১:১৪

জনাব মালিক সঠিক বলেছেন। দুর্নীতিগ্রস্থ আইসিসির বিরুদ্ধে বিসিবির উচিত অনাস্থা প্রস্তাব আনা. আর আগরওয়াল নামক ভারতীয় জুয়াড়ি দেড় বিরুদ্ধে কোনো আইনগত বেবস্থা না নেয়ার জন্য ভারত ক্রিকেট বোর্ড কেই নিষিদ্ধ করা উচিত ।

আপনার মতামত দিন

এয়ার শো’তে অংশ নিতে আমিরাত যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রী

টেস্ট ম্যাচ দেখতে প্রধানমন্ত্রীকে মোদির আমন্ত্রণ

ঢাকায় আসছেন ড. কলিন ফিপস ডিওং

ভারতীয় স্বার্থ রক্ষায় ৬৫ দেশে সক্রিয় ২৬৫টি ভুয়া ওয়েবসাইট

রোববার শুরু হচ্ছে প্রাথমিক-ইবতেদায়ী সমাপনী পরীক্ষা

মশাকাণ্ড, স্ত্রীর হামলায় স্বামী হাসপাতালে, মামলা

ভারতের বিরুদ্ধে লড়তে কাশ্মীরিদের প্রশিক্ষণ দিতাম: পারভেজ মোশাররফ

জয়ের পথে বাংলাদেশ ইমার্জিং দল

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় জামিন চেয়ে খালেদার আপিল

পিতাকে হত্যার দায়ে ছেলের যাবজ্জীবন

এরদোগানের বিরোধিতা মার্কিন কংগ্রেস সদস্যদের

শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন শনিবার, মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দু’জন

‘ক্ষতিগ্রস্ত যাত্রীদের তামাশার মত করে ক্ষতিপূরণ দেয়া হয়’

কোন ডকুমেন্ট পোড়েনি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রোহিঙ্গা নির্যাতনের অভিযোগে সুচির বিরুদ্ধে মামলা

৬৯ বারের মতো পেছালো প্রতিবেদন দাখিলের সময়